নিউজরুম ৭১॥ মাদারীপুরের শিবচরে থেমে থাকা বালুবোঝাই একটি বাল্কহেডে একটি স্পিডবোট ধাক্কা দিয়েছে। এতে এখন পর্যন্ত ২৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। কয়েকজন এখনো নিখোঁজ রয়েছেন।

সোমবার ভোর ছয়টার দিকে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিস ও নৌপুলিশ নিখোঁজদের উদ্ধারে অভিযান চালাচ্ছে।

বাংলাবাজার ফেরিঘাটের ট্রাফিক পরিদর্শক আশিকুর রহমান জানান, ভোরে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া থেকে ২২-২৪ জন যাত্রী নিয়ে একটি স্পিডবোট মাদারীপুরের শিবচরের বাংলাবাজারের দিকে আসছিল। ঘাটের কাছাকাছি আসার পর নোঙর করা বালুবোঝাই একটি বাল্কহেডের পেছনে স্পিডবোটটি ধাক্কা দেয়। এতে স্পিডবোটটি উল্টে গেলে সেখানে থাকা যাত্রীরা ডুবে যায়।

খবর পেয়ে উদ্ধার অভিযানে যায় শিবচর ফায়ার সার্ভিস ও নৌ পুলিশ। এখন পর্যন্ত ২৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে কয়েকজন শিশু ও নারীও আছে। মরদেহগুলো পুরান কাঁঠালবাড়ি ঘাটে রাখা হয়েছে।

কাঁঠালবাড়ী নৌপুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এখন পর্যন্ত আমরা ২৬ জনের লাশ উদ্ধার করেছি। সাধারণত স্পিডবোটে ২০ জনের মতো যাত্রী উঠানো হলেও এটিতে কতজন যাত্রী ছিল তা জানা যায়নি। নদীতে আর কেউ নিখোঁজ আছে কিনা তা জানতে উদ্ধার কাজ চালানো হচ্ছে।’

ফায়ার সার্ভিসের মিডিয়া সেল থেকে জানানো হয়, দুর্ঘটনার পর পাঁচজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। তার মধ্যে যৌথ উদ্ধার অভিযান চালানোর আগে জীবিত চারজনকে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে। পরে ফায়ার সার্ভিস গিয়ে একজনকে জীবিত ও ২৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করে। জীবিত পাঁচজন শিবচরের পাঁচচরের রয়েল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এখনো কতজন নিখোঁজ রয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। উদ্ধার হওয়া নিহতদের মধ্যে তিনজন শিশু, এক জন নারী এবং ২২ জন পুরুষ।

উদ্ধার অভিযানে যোগ দিতে বরিশাল থেকে ফায়ার সার্ভিসের আরও দক্ষ ডুবুরি দল দুর্ঘটনাস্থলের উদ্দেশে রওনা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *