সংলাপের আহ্বান ও খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধি সাংঘর্ষিক

নিউজরুম ৭১॥ সংলাপের আহ্বান এবং খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধি একে অপরের সাথে সাংঘর্ষিক। এতে সরকারের আন্তরিকতা প্রমাণ করে না। খালেদা জিয়ার রায়ের প্রতিবাদে বিএনপির মানববন্ধন কর্মসূচিতে দলটির নেতারা এসব বলেন। তারা আরও বলেন, সংলাপ আন্দোলন আর নির্বাচন একসাথে চলবে। ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা দাবি মেনে নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

গেলো ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন বিশেষ জজ আদালত। এর পরদিনই অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বেগম জিয়ার ৫ বছরের সাজা বাড়িয়ে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেন হাইকোর্ট।

আর এর প্রতিবাদেই জাতীয় প্রেসক্লাবেরর সামনে বিএনপির মানববন্ধন। এতে অংশ নেন দলীয় মহাসচিব, স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ বিভিন্ন স্তরেরর নেতাকর্মীরা।

পুলিশের নির্দেশনা অনুযায়ি মানববন্ধন শুরু হয় সকাল ১১ টায়।

মানববন্ধনে স্থায়ী কমিটির সদস্য মঈন খান অভিযোগ করেন, দেশে অঘোষিত বাকশাল চালু করেছে সরকার। আর খন্দকার মোশাররফ হোসেন ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা দাবি মেনে নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

প্রতিবাদ কর্মসূচিতে মওদুদ আহমদ বলেন, সংলাপ, আন্দোলন আর নির্বাচন এক সাথে চলবে। তবে মির্জা ফখরুল ইসলামের মন্তব্য, বেগম জিয়াকে কারাগারে রেখে নির্বাচন এবং সংলাপ ফলপ্রসূ হবে না।

দুপুর ১২টায় মানববন্ধন কর্মসূচি শেষ করে বিএনপি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *