নিউজরুম ৭১॥ নায়ক জসিমের পুরো নাম আবদুল খায়ের জসিম উদ্দিন। তিনি ১৯৫০ সালের ১৪ আগস্ট ঢাকার কেরানীগঞ্জের বক্সনগর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। লেখাপড়া করেন বিএ পর্যন্ত। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে ২ নম্বর সেক্টরে মেজর হায়দারের নেতৃত্বে লড়াই করেন তিনি।বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়ক জসিম ছিলেন একজন মুক্তিযোদ্ধা। খলচরিত্র দিয়ে অভিনয়ের ক্যারিয়ার শুরু করলেও পরে নায়ক হিসেবে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি। তাঁকে ধরা হয় বাংলাদেশের অ্যাকশন ধারার চলচ্চিত্রের অন্যতম প্রবর্তক।
মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭২ সালে ‘দেবর’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে জসিমের আত্মপ্রকাশ। ১৯৭৩ সালে তিনি ‘রংবাজ’ ছবিতে অ্যাকশন ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করে প্রশংসিত হন। দুই বন্ধু আরমান ও মাহবুবকে নিয়ে তিনি গড়ে তোলেন ‘জেমস ফাইটিং গ্রুপ’। চলচ্চিত্রের অ্যাকশন দৃশ্য পরিচালনা এবং স্ট্যান্টম্যান সরবরাহের কাজ করত গ্রুপটি।
বলিউডের বিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘শোলে’র আদলে ঢাকায় নির্মিত হয় ‘দোস্ত দুশমন’। ছবিতে খলনায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেন জসিম। এছারা ‘বারুদ’, ‘আসামি হাজির’, ‘ওস্তাদ সাগরেদ’, ‘জনি’, ‘কুরবানি’সহ অনেক ব্যবসাসফল ছবিতে খলচরিত্রে অভিনয় করেন ।
১৯৮০-এর দশকের শুরুর দিকে সুভাষ দত্তের পরিচালনায় ‘সবুজ সাথী’ ছবির মাধ্যমে তিনি নায়ক হয়ে পর্দায় হাজির হন। তিনি ববিতা, সুচরিতা, শাবানা, রোজিনা, নাসরিনসহ সে সময়ের সফল নায়িকাদের বিপরীতে অভিনয় করেন।
জসিম অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘রাজ দুলারী’, ‘তুফান’, ‘জবাব’, ‘নাগ নাগিনী’, ‘বদলা’, ‘বারুদ’ প্রভৃতি।
আজ ৮ অক্টোবর, নায়ক জসিমের ২০তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৯৮ সালের এই দিনে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে না-ফেরার দেশে পাড়ি জমান তিনি। এ উপলক্ষে এফডিসিতে বাদ আসর মিলাদ মাহফিল ও দোয়ার আয়োজন করে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। নায়ক জসিমের নামে এফডিসির ২ নম্বর ফ্লোরের নামকরণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *